মাড়ির সমস্যা সংক্রান্ত ৬ টি মিথ্যা ধারণা, জেনে রাখুন…


যদিও প্রত্যেকেরই মাড়ির রোগ হওয়ার সম্ভাবনা থাকে, তবুও অনেকেই তাদের মুখের স্বাস্থ্যকে ক্রমাগত অবহেলা করে এবং তাদের মাসিক ডেন্টাল ভিজিট এড়িয়ে যায়, এর ফলে মাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে, যা দুর্ভাগ্যজনক। এর একটি অংশ মাড়ির রোগ সম্পর্কে ছড়িয়ে থাকা ক্রমাগত ভুল ধারণার জন্য দায়ী। আপনার মাড়ি যাতে সুস্থ থাকে তা নিশ্চিত করতে এই ছয়টি মিথ্যা ধারনাকে এড়িয়ে চলুন…

মাড়ির রোগ কিভাবে হতে পারে ?

মাড়ির রোগ, সহজভাবে বলতে গেলে, এমন একটি ব্যাধি যা মাড়ির লাইন বরাবর এবং নীচে প্লাক তৈরির কারণে হয়। মাড়ির রোগের সবচেয়ে সাধারণ লক্ষণগুলির মধ্যে একটি হল আপনার মাড়ি ধীরে ধীরে ঘা হবে এবং রক্তপাত হবে এবং মাঝে মাঝে তারা সংক্রামিত হতে পারে। মাড়ির রোগের অপর নাম জিঞ্জিভাইটিস, যদি চিকিৎসা না করা হয় তবে পিরিওডন্টাল রোগে পরিণত হতে পারে। যার ফলে মাড়ি থেকে রক্তক্ষরণ হয় এবং বিরক্তি হয় এবং তারা রক্তচাপের উপরও প্রভাব ফেলতে পারে। মাড়ির রোগ সময়ের সাথে সাথে এমনভাবে খারাপ হতে পারে যে চোয়াল এবং আশেপাশের হাড়গুলি ক্ষয় হতে শুরু করে।

মাড়ির রোগ সম্পর্কে ছয়টি ভুল ধারণা –

মাড়ির রোগে আক্রান্ত হলে, মাড়ির বিভিন্ন উপসর্গ দেখা যায়ঃ

প্রদাহ, রক্তপাত এবং খারাপ গন্ধ হল মাড়ির রোগের প্রাথমিক পর্যায়ের লক্ষণ, কিন্তু মাড়ির রোগে সবসময় উপসর্গ নাও থাকতে পারে। তাই অনেক সমইয়েই অনেকে মাড়ির ছোটোখাটো সমস্যা এড়িয়ে যায়, যা কখনই উচিত নয়। একারনেই দাঁতের বা মাড়ির কোনো সমস্যা অনুভুত না হলেও অন্তত ৬ মাসে একবার ডেন্টিস্ট এর কাছে গিয়ে পরীক্ষা করিয়ে আসা উচিত।

মাড়ির রোগে আক্রান্ত রোগীদের দাঁত হারানোর সম্ভাবনা থাকেঃ

মাড়ির রোগের রোগীদের মধ্যে সহজাত পার্থক্যের কারণে, প্রতিটি রোগীর নির্দিষ্ট সমস্যার জন্য ফলাফল বিভিন্ন হতে পারে। সম্ভাবনা থাকা সত্ত্বেও, ব্যাপক মাড়ির রোগ সবসময় দাঁতের ক্ষতির কারণ হয় না। ভাল চিকিৎসা এবং প্রাথমিক সনাক্তকরণের মাধ্যমে, আপনি দাঁতের ক্ষতির পাশাপাশি অন্যান্য বিপজ্জনক পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া এড়াতে পারেন। ভালো দাঁতের ডাক্তার আপনাকে মাড়ির রোগ নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করার জন্য একটি চিকিৎসা পরিকল্পনা তৈরি করে দিতে পারেন।

মুখের দুর্গন্ধ একটি সাধারন সমস্যাঃ

অনেকেই মুখের দুর্গন্ধকে একটা সাধারন ধারনা ভেবে এড়িয়ে যায়, যা কিনা সবসমই ঠিক নয়। মুখ থেক বেড়োনো দুর্গন্ধ অথবা খাবারের ভয়ানক বাজে স্বাদ মাড়ির বিভিন্ন সমস্যা থেকে হতে পারে। এজন্য ক্রমাগত মুখে দুর্গন্ধ হতে থাকলে আপনার ডেন্টিস্ট-এর পরামর্শ নেওয়া উচিত।

দাঁতের যত্ন না নিলে মাড়ির সমস্যা হয়ঃ

অনেকেরই মনে এই ধারনা থাকে যে দাঁতের ভালোভাবে যত্ন না নিলে মাড়ির বিভিন্ন সমস্যা দেখা দেয়। কিন্ত এটা সবসময় সত্যি নয়। মাড়ির রোগ হওয়ার সম্ভাবনা বিভিন্ন বাহ্যিক পরিস্থিতি দ্বারা প্রভাবিত হতে পারে, যেমন আপনার মাড়ির স্বাস্থ্য ধূমপান, চাপ এবং এমনকি বংশগত সহ বিভিন্ন কারণের দ্বারা প্রভাবিত হতে পারে। এটি বোঝায় যে এমনকি যদি আপনি চমৎকার অবস্থায় আছেন বলে মনে হয়, তবুও আপনার মাড়ির রোগ হতে পারে।

মাড়ি থেকে রক্তপাত সাধারণ ঘটনাঃ

অনেক লোক মনে করে যে মাড়ি থেকে রক্তক্ষরণ কেবল ব্রাশ করার সময় অত্যধিক শক্তি প্রয়োগের ফলে হয়। কিন্তু এটি আসলে মাড়ির রোগের একটি ইঙ্গিত। তাই বারবার ব্রাশ করার সময় দাঁত থেকে রক্তপাত হলে আপনার শীঘ্রই ডেন্টিস্টের পরামর্শ নেওয়া উচিত।

ক্যাভিটিস না থাকলে মাড়ির রোগ হয়নাঃ

অনেকেরই মনে হতে পারে যে দাঁতের কোনো সমস্যা না থাকলে মাড়ির ও কোনো সমস্যা হবেনা, কিন্তু এই ধারনা সম্পূর্ণ ভুল। যদিও দাঁত এবং মাড়ি একসাথে সংযুক্ত থাকে, তারা সবসময় একে অপরের স্বাস্থ্য প্রভাবিত করে না। তাই দাঁতে ক্যাভিটিস বা অন্য সমস্যা না থাকলেও মাড়ির সমস্যার সঠিক মূল্যায়নের জন্য ডেন্টিস্টের পরামর্শ নেওয়া উচিত।

আপনি যদি সন্দেহ করেন যে আপনার মাড়ির রোগ হতে পারে তবে আযথা ভয় পাওয়ার কিছু নেয়, অপারেশন ছাড়াই ব্যাথাহীন উপায়ে মাড়ির রোগের চিকিৎসা করা যেতে পারে। সঠিক চিকিৎসা পেতে আপনি শীঘ্রই নিকটবর্তী কোনো ভালো ডেন্টাল ক্লিনিকে অথবা ডেন্টিস্টের সাথে যোগাযোগ করুন।