দাঁতের শিরশিরানি সমস্যায় ভুগছেন ? জেনে রাখুন সমাধান

আপনি যদি আইসক্রিম, কফি, চা ইত্যাদি ঠান্ডা বা গরম জিনিস খাওয়ার সময় ব্যথা বা শিরশিরানি অনুভব করেন তবে এটি দাঁতের সংবেদনশীলতার একটি কারণে হতে পারে। যখন কেউ দাঁতের সংবেদনশীলতা বা ডেন্টিন অতি সংবেদনশীলতায় ভোগে, তখন তাদের দাঁত গরম বা ঠান্ডা তাপমাত্রার জন্য দুর্বল হয়ে পড়ে। এই রকম শিরশিরানি গরম বা ঠান্ডা খাবার খাওয়ার সময় হঠাৎ ব্যথা অনুভব করে, যা অদৃশ্য হয়ে যায়। বেশিরভাগ গবেষণায় দেখা যায় যে জনসংখ্যার 10-30% দাঁতের শিরশিরানির সমস্যায় ভোগে।

এই ধরণের শিরশিরানির কারণে যে ব্যথা হয় তা অস্থায়ী বা দীর্ঘস্থায়ী হতে পারে। এই ধরনের সমস্যার ক্রমাগত হতে থাকলে আপনার ডেন্টিস্টের পরামর্শ নেওয়া উচিত। ডেন্টিস্ট আপনার দাঁত পর্যবেক্ষন করে শিরশিরানির কারন যানাবেন এবং সেইমত আপনার জন্য নির্দীষ্ট চিকিৎসা পদ্ধতির ব্যাবস্থা করবেন। তাই, দাঁতের শিরশিরানির জন্য যাতে আপনার প্রিয় খাবারগুলি খাওয়া মিস না হয়ে যায়, তার জন্য আজকে থেকেই ডাক্তারের পরামর্শ নেওয়া শুরু করুন।

দাঁতের সংবেদনশীলতা আসলে কি?

যদি কেউ দাঁতের সংবেদনশীলতায় ভোগেন, তাহলে ঠান্ডা বা গরম কিছু খেলে দাঁতে শিরশিরানি বা ব্যাথা হতে পারে। ডেন্টিনের অতি সংবেদনশীলতার জন্য শিশু থেকে প্রাপ্তবয়স্কদের যেকোনো বয়সের মধ্যে দেখা যায়। সংবেদনশীলতার প্রধান কারণ হল দাঁতের এনামেল ক্ষয় বা দাঁতের শিকড়ের সংস্পর্শে আসা। তীক্ষ্ণ ব্যথা এবং অস্বস্তি একটি সংবেদনশীল দাঁতের প্রভাবের প্রাথমিক লক্ষণ।

যারা দাঁতের সংবেদনশীলতায় ভোগেন, অনেক সময় তার মনে করেন এটা একটা সাধারণ সমস্যা যা আপনা-আপনি নির্মূল হয়ে যায়। তাই অনেক ক্ষেত্রেই তারা ডেন্টিস্ট-এর পরামর্শ নেন না। কিন্তু এভাবে দাঁতের সমস্যা এড়িয়ে যাওয়া পরবর্তীকালে দাঁতের বড় ধরনের সমস্যার কারন হতে পারে। আসুন এখন সংবেদনশীল দাঁতের কারণ, উপসর্গ এবং চিকিৎসা সম্পর্কে জেনে নেই।

দাঁতে শিরশিরানির কারনঃ

অনুপযুক্ত মৌখিক স্বাস্থ্যবিধি দাঁতের শিরশিরানি সমস্যার একটা প্রাথমিক কারন। আবার কিছু লোকের ক্ষেত্রে দাঁতের পাতলা এনামেলের কারণে সংবেদনশীলতা অনুভত হতে পারে। যাইহোক, নীচে সংবেদনশীল দাঁতের কারণগুলি বিস্তারিত ভাবে তালিকাভুক্ত করা হয়েছে

১) কেউ দাঁতের সংবেদনশীলতা অনুভব করতে পারে যখন তারা শক্ত টুথব্রাশ ব্যবহার করে বা ব্রাশ করার সময় তাদের দাঁতের উপর অনেক চাপ দেয়।

২) আপনি যদি ঘুমানোর সময় আপনার দাঁত পিষে থাকেন তবে এটি ডেন্টিন হাইপারসেনসিটিভিটির অন্যতম কারণ হতে পারে।

৩) এটি অনেক অ্যাসিডিক খাবার এবং পানীয় খাওয়ার কারণেও হতে পারে।

৪) এটি গ্যাস্ট্রোইসোফেজিয়াল রিফ্লাক্সের কারণেও হতে পারে কারণ পাকস্থলী থেকে অ্যাসিড মুখের মধ্যে যেতে পারে এবং দাঁতের এনামেলের ক্ষয় ঘটাতে পারে।

৫) দাঁতের এনামেলের ক্ষয় ঘটাতে পারে। কখনও কখনও অনুপযুক্ত মৌখিক স্বাস্থ্যবিধি, ফাটা দাঁত, ভাঙা দাঁত এবং চিকন দাঁত দাঁতের সংবেদনশীলতার কারণ হতে পারে।

৬) ক্ষয়ে যাওয়া মাড়ির কারণে দাঁত উন্মুক্ত হয়ে যায়, যা সংবেদনশীলতার কারণও হতে পারে।

৭) ফিলিংস, ক্রাউন ইত্যাদির মতো দাঁতের পদ্ধতির কারণে আপনার সংবেদনশীলতা একটি নির্দিষ্ট সময়ের জন্য হতে পারে। এবং একটি নির্দিষ্ট এলাকায় সংবেদনশীলতা কয়েক দিনের মধ্যে কমে যাবে।

দাঁতের সংবেদনশীলতার লক্ষনঃ

যখন দাঁত বিভিন্ন তাপমাত্রার সাথে যোগাযোগ করে, যেমন ঠান্ডা এবং গরম, তখন তারা তীব্র ব্যথা বা অস্বস্তি সৃষ্টি করতে পারে। এছাড়াও অন্যান্য স্বাস্থ্যের অবস্থা বা ব্যাধি থাকতে পারে যা সংবেদনশীলতার দিকে পরিচালিত করতে পারে যার মধ্যে শরীরের অন্যান্য অংশ জড়িত। সংবেদনশীলতার সাথে মুখের কিছু উপসর্গ হল নিঃশ্বাসে দুর্গন্ধ, মাড়ি কমে যাওয়া, লালচেভাব এবং মাড়ি ফুলে যাওয়া।

অন্যান্য উপসর্গ যা একজন লক্ষ্য করতে পারে তা শরীরের অন্যান্য অঙ্গগুলির সাথে সম্পর্কিত। কেউ বুকজ্বালা, বদহজম, চোয়ালের ব্যথা, সাইনাসের ব্যথা, মুখ খুলতে অসুবিধা খুঁজে পেতে এবং আরও অনেক কিছু অনুভব করতে পারে। অন্তর্নিহিত গুরুতর স্বাস্থ্যের অবস্থা নির্দেশ করে অন্যান্য গুরুতর লক্ষণগুলির সম্ভাবনাও রয়েছে। অতএব, সংবেদনশীলতার তীব্রতা কম হলে দাঁতের ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করা এবং সময়মতো সতর্কতা অবলম্বন করা সর্বদা ভাল। সময়মতো ডেন্টিস্টের কাছে যাওয়া আপনাকে ভবিষ্যতে গুরুতর স্বাস্থ্য পরিস্থিতি থেকে রক্ষা করতে সাহায্য করতে পারে।

দাঁতের সংবেদনশীলতার চিকিৎসাঃ

যদি সংবেদনশীলতা গুরুতর না হয় তবে আপনি আপনার মৌখিক স্বাস্থ্যবিধির উপর ফোকাস করা শুরু করতে পারেন। আপনি হালকাভাবে ব্রাশ করতে পারেন এবং সংবেদনশীল দাঁতের জন্য একটি নরম টুথব্রাশ এবং টুথপেস্ট ব্যবহার শুরু করতে পারেন। অ্যালকোহল-মুক্ত মাউথওয়াশ বেছে নিন। এই পরিবর্তনগুলি করার পরেও এবং নিয়মিত মৌখিক স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করার পরেও, যদি আপনার সংবেদনশীলতা বজায় থাকে, তবে এটি আপনার দাঁতের ডাক্তারের কাছে যাওয়ার সময়। আপনার ডেন্টিস্ট আলগা ফিলিংস, ক্যাভিটি এবং মাড়ির পতনের মতো সমস্যাগুলি পরীক্ষা করবেন যা সংবেদনশীলতার সম্ভাব্য সমস্যা হতে পারে।

আপনার সমস্যা পরীক্ষা করার পরে, ডেন্টিস্ট একটি উপযুক্ত চিকিৎসা সুপারিশ করবে। আপনার যদি মাড়িতস সাধারণ সমস্যা থাকে তবে দাঁতের ডাক্তার একটি মাড়ির কলম করার পরামর্শ দেবেন। এই পদ্ধতিতে দাঁতের গোড়ার সুরক্ষা জড়িত। আপনি ঘুমানোর সময় দাঁতে সমস্যা হলে তিনি আপনাকে মাউথগার্ড ব্যবহার করার পরামর্শ দেবেন।

আপনি যদি ক্রমশই দাঁতের শিরশিরানির সমস্যায় ভোগেন, তাহলে শীঘ্রই কোনো ডেন্টিস্ট-এর পরামর্শ নিন। যদি দাঁতের শিরশিরানির কারন সাধারন হয়ে থাকে তবে দুঃশ্চিন্তার কোনো কারণ নেই, তা খুবই শীঘ্রই নির্মূল সম্ভব। আর যদি সমস্যার কারন জটিল হয়ে থাকে, তবে ডেন্টিস্টের পরামর্শ মতন চিকিৎসা চালিয়ে যান। এবং চিকিৎসার মানে যাতে কোনো রকম কমতি না থাকে, তাই সবসময় ভালো উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহৃত ডেন্টাল ক্লিনিকে যোগাযোগ করুন।