আপনার শিশুর হাসিতো সকলের প্রিয়, কিন্তু সেই হাসি টিকিয়ে রাখতে সঠিক ভাবে ব্রাশ করাচ্ছেন তো ?

পিতা-মাতা হওয়া খুবই আনন্দের ও গর্বের বিষয়। আপনার শিশুর হাসি দেখলে আপনার কষ্ট এবং নিদ্রাহীন রাত অদৃশ্য হয়ে যায়। একজন অভিভাবক তাদের শিশুকে হাসতে, সুস্থ ও সুখী দেখতে সব ধরনের কাজ করবেন। কিন্তু আমরা কজন সেই হাসির যত্ন নিই? আমরা কয়জন জানি যে কীভাবে সেই হাসির যত্ন নিতে হয় এবং কখন শিশুর দাঁত ব্রাশ করা শুরু করতে হয়? শিশুর দাঁত ছোট হতে পারে, কিন্তু তারা শিশুর বিকাশে একটি বড় ভূমিকা পালন করে। শিশুর জন্মের 6 মাস পর প্রথম শিশুর দাঁত দেখতে পাওয়া যায়, যা মাড়ির ভেতর লুপ্ত অবস্থায় থাকে। তারপরে, শিশুর দাঁতের পুরো সেট মুখে না আসা পর্যন্ত তারা একের পর এক পপ আউট করতে থাকে। শিশুর 3 বছর জন্মদিন পর্যন্ত, শিশুর মাড়ির দাঁতগুলো দুধে দাঁতগুলি দ্বারা প্রতিস্থাপিত হয়, যা প্রাপ্তবয়স্ক দাঁত বা স্থায়ী দাঁতের জন্য প্রকিউরেটর হিসাবে কাজ করে। যদি শিশুর শিশুর দাঁতের একটি সুস্থ সেট বিকাশ না হয়, তাহলে শিশুর খাওয়া, হাসি, এমনকি কথা বলতে সমস্যা হতে পারে। এটা হওয়া উচিত নয়। তাই শিশুর দাঁত পরিষ্কার করা এবং তাদের সুস্থ রাখা শিশুর বৃদ্ধি ও বিকাশের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এ বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা যাক।


শিশুর মাড়ির যত্ন নেওয়া

প্রথম এবং প্রধান প্রশ্ন যা প্রতিটি নতুন পিতামাতার মনে আসে তা হল কখন ব্রাশ করা শুরু করবেন এবং শিশুর দাঁত ব্রাশ করার সর্বোত্তম উপায় কী? প্রথম শিশুর দাঁত শিশুর মুখে আসার সাথে সাথে দাঁতের যত্ন শুরু হয়। তার আগে মাড়ির যথাসম্ভব সুস্থ রাখার চেষ্টা করতে হবে। এটি বিশেষ করে টুথপেস্ট এবং টুথব্রাশের ব্যবহার জড়িত নয়। এর পরিবর্তে একটি নরম, ওয়াশক্লথ বা এক টুকরো গজ নিন। এই ওয়াশক্লথটি ভিজিয়ে দিন এবং দিনে অন্তত দুবার আপনার শিশুর মাড়ি আলতো করে মুছুন, এটি খাওয়ানোর পরে এবং শোবার আগে হতে পারে। এটি শিশুর মাড়িকে ব্যাকটেরিয়া মুক্ত রাখতে সাহায্য করে এবং মাড়ির সাথে খাবার লেগে থাকা বন্ধ করে। এই সব প্লাক জমে বাধা দেয় এবং আসন্ন শিশুর দাঁত যেকোন ক্ষতি থেকে বাঁচায়।

আপনার শিশুর সঠিক ভাবে দাঁত ব্রাশ করার পদ্ধতি

শুরু থেকেই দাঁতের যত্ন নেওয়া শুরু করলে, শিশু প্রতিদিনের রুটিনে অভ্যস্ত হয়ে যায়। তাই, বাচ্চাদের দাঁত পরিষ্কার করা শুরু করা উচিত যখন প্রথম শিশুর দাঁত দেখা যায়। এই জন্য, প্রথম ধাপ একটি সঠিক টুথব্রাশ নির্বাচন করা হয়। এটি একটি নরম ব্রাশ, ছোট-মাথা এবং একটি বড় হ্যান্ডেল হতে পারে। প্রাথমিকভাবে, আপনি ব্রাশ করার আগে কয়েক মিনিটের জন্য উষ্ণ জলে ভিজিয়ে রেখে টুথব্রাশটি ভিজিয়ে রাখতে পারেন। এটি ব্রাশকে আরও বেশি নরম করে। ধীরে ধীরে এবং ধীরে ধীরে, মুখে আরও দাঁত প্রদর্শিত হলে, আপনি টুথপেস্ট ব্যবহার শুরু করতে পারেন, তবে মনে রাখবেন যে একটি টুথ পেস্টের পরিমান খুবই সামান্য হওয়া উচিত।

যখন বাচ্চার বয়স তিন বছর হয়ে যায়, তখন মোটামুটি ভাবে সব দুধে দাঁতগুলি দৃশ্যমান হয়ে যায়। তখন থেকে আপনি সাধারন পরিমানে পরিমানে টুথপেস্ট ব্যবহার করতে পারেন। অনেক বাচ্চাদের টুথপেস্ট বাচ্চাদের আনন্দদায়ক স্বাদ দিয়ে তৈরি করা হয়। এটি পিতামাতাকে শিশুকে ব্রাশ করতে আরও উত্সাহিত করতে সহায়তা করে। একটি ডাক্তারের সুপারিশ সহ পেস্ট চয়ন করুন, যা নিরাপত্তা এবং কার্যকারিতার জন্য IDA প্রত্যয়িত। নির্দেশিকা ম্যানুয়ালটি সাবধানে এবং পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে পড়ুন। কিছু টুথপেস্ট একটি নির্দিষ্ট বয়সের কম বয়সী শিশুদের জন্য সুপারিশ করা হয় না।

দিনে অন্তত দুবার ব্রাশ করুন, সকালে এবং ঘুমানোর ঠিক আগে। তাদের অন্তত 2 মিনিট ব্রাশ করতে দিন, এবং মোলার অঞ্চলে আরও মনোনিবেশ করুন কারণ এই অঞ্চলটি ক্ষয়জনিত বিকাশের জন্য বেশি প্রবণ। প্রতি 3 মাস পর পর টুথব্রাশ প্রতিস্থাপন করতে ভুলবেন না। আপনার শিশুর দাঁত ব্রাশ করা উচিত যতক্ষণ না তারা তাদের ব্রাশ ধরে রাখার মতো বয়সী হয়।

সন্তানের মৌখিক গহ্বরে দুটি সংলগ্ন দাঁত ফুটে উঠলে নিয়মিত কুলিকুচি করান। কিছু খাবার এই বয়সে এড়িয়ে যাওয়া উচিত, যেমন নির্দিষ্ট ফলের রস, সোডা বা চিনিযুক্ত পানীয়। এই সবই শিশুর দাঁতের ক্ষতি করতে পারে। যদি অতিরিক্ত দেওয়া হয় এবং অন্তর্নিহিত স্থায়ী দাঁতের ক্ষতি করে। কখনও কখনও মিষ্টি পানীয়, এমনকি দুধও দাঁতের উপরিভাগে স্থির হয়ে যায়, যা শিশুর বোতলের দাঁত ক্ষয় নামে পরিচিত একটি সাধারণ দাঁতের সমস্যা সৃষ্টি করে। বিশেষ করে ঘুমের সময় বা রাতের বেলায় চিনিযুক্ত পানীয় বা দুধ দেওয়া এড়ানোর মাধ্যমে এটি প্রতিরোধ করা উচিত।

আপনার শিশুর সুস্থ দাঁতের অভ্যাস ছোটো থেকেই আপনি তৈরি করতে পারেন। যদিও শিশুকে টুথপেষ্ট দিয়ে সঠিক ভাবে ব্রাশ করা সেখাতে অনেক সময় ও ধৈর্য লাগবে। কিন্তু একবার আপনি আপনার শিশুর মধ্যে এই অভ্যাস তৈরি করে দিতে পারলে তা দীর্ঘস্থায়ী হবে ও আপনার বাচ্চার ব্যাথাহীন ও সুস্থ ভবিষৎ-এর অঙ্গিকার হবে।